সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

১৩ আশ্বিন ১৪২৭

ই-পেপার

নড়াইল প্রতিনিধি

আগস্ট ০৯,২০২০, ০৮:৫২

আগস্ট ০৯,২০২০, ০৮:৫২

নড়াইলে গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি আটক

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া ইউনিয়নের কুমড়ী গ্রামের এক গৃহবধূকে গণধর্ষণসহ মারপিট করার অভিযোগে শনিবার রাতে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

পুলিশ রোববার (৯ আগষ্ট) সকালে কুমড়ি গ্রামে অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামি রিপন মোল্যাকে গ্রেফতার করেছে। পুলিশ জানায়, রিপনের নামে লোহাগড়া থানায় খুনসহ ৭টি মাদক ও অন্যান্য মামলা মিলে দশটি মামলা রয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষিতার পিতা বাদি হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৪/৫ জনকে আসামি করে শনিবার রাতে লোহাগড়া থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-০৫। মামলার আসামিরা হলেন কুমড়ি গ্রামের রিপন মোল্যা (৩৫), ওহিদুল মোল্যা (২৯), পাশ্ববর্তী তালবাড়িয়া গ্রামের নুরনবী মোল্যা (২৫)।

পুলিশ ও ধর্ষিতা নারীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলার কুমড়ী গ্রামের গৃহবধু একসন্তানের জননী (২১) গত বুধবার (৫ আগষ্ট) সন্ধ্যায় বাড়ির পাশর্^বর্তী পুকুরে হাত-পা ধুতে গেলে কুমড়ী গ্রামের রিপন মোল্যা এবং ওহিদুল মোল্যা ওই গৃহবধূকে জোর পূর্বক নির্জন স্থানে ধরে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে ধর্ষকসহ কুমড়ি গ্রামের প্রভাবশালী কয়েক ব্যক্তি শালিসের নামে ওই নারীকে মারপিট করে অবরুদ্ধ করে রাখে।

ওই নারী অভিযোগে জানান, প্রভাবশালীদের সহযোগিতায় ধর্ষকরা আমাকে ধর্ষণসহ মারপিট ও অবরুদ্ধ করে রেখেছিল। হত্যার হুমকিও দিয়েছে।

ওই নারীর পিতা জানান, ঘটনার পর প্রভাবশালীরা আমাদের বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখে।পরে সুযোগ বুঝে গত শুক্রবার (৭ আগষ্ট) সকালে স্বপরিবারে পালিয়ে এসে নড়াইল সদর হাসপাতালে মেয়েকে ভর্তি করি।

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

আমারসংবাদ/এমআর