বুধবার ২১ অক্টোবর ২০২০

৫ কার্তিক ১৪২৭

ই-পেপার

এএইচএম কাউছার, চট্টগ্রাম

সেপ্টেম্বর ২১,২০২০, ১০:১০

সেপ্টেম্বর ২২,২০২০, ০৮:০৩

পদোন্নতি বিলম্বিত হওয়ায় হতাশায় পিটিআই ইনস্ট্রাক্টরা

নতুন পদ সৃজনের দুই মাস অতিক্রান্ত হলেও ২য় সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট পদে পদায়ন বিলম্বিত হওয়ায় হতাশায় প্রাইমারী টিচার্স ট্রেনিং ইন্সটিটিউট পিটিআই ইনস্ট্রাক্টরা।

জানা যায়, বিগত (০২ জুলাই) মাসে প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় পিটিআই তে নতুন ৬৬টি দ্বিতীয় সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট এর পদ সৃজনের অনুমোদন দেন সচিব কমিটি। এরপর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তর থেকে পদোন্নতি প্রাপ্ত তালিকা মন্ত্রালয়ে গেলেও এখনো পযন্ত শূণ্য পদে পদায়ন হয়নি।

এদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেনের দীর্ঘ আন্তরিকতায় এ পদ সৃজনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে বলে জানান পিটিআই কর্মকর্তারা। নতুন পদ সৃজনে পদোন্নতির আশায় পিটিআই ইনস্ট্রাক্টরদের মনে আশার সঞ্চার করেছে। সে আশা এখনো বাস্তবায়ন না হওয়ায় ২৮/২৯ বছর ধরে একই পদে কর্মরত ইনস্ট্রাক্টরদের মনে আবার চরম হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এই ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন বলেন (পিটিআই) ইনস্ট্রাক্টরদের নতুন ৬৬টি দ্বিতীয় সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট পদায়নের ব্যাপারে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ চলছে। কাজ শেষ হলেই পদায়ন ঘোষণা আসবে। এটা চলতি বছরে হতে পারে বলে আভাস দেন তিনি।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পিটিআই কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি খন্দকার দীন মোহাম্মদ জানান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সিনিয়র সচিব স্যারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দীর্ঘ ০১ যুগের পর ৬৬টি দ্বিতীয় সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট এর পদ সৃষ্টি হয়। জিও জারীসহ সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পরও দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও পদগুলোতে এখনও পদায়ন না করাই একদিকে পিটিআই ইনস্ট্রাক্টকদের মধ্যে যেমন হতাশা নেমে এসেছে, অন্যদিকে সরকারের এই সাফল্যটি দৃশ্যমান হচ্ছে না। প্রকারান্তরে সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। যা কোন ভাবে প্রত্যাশিত নয়। এ ব্যাপারে সিনিয়র সচিব স্যারের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। কারণ অনেক ইনস্ট্রাক্টরা ১৯৯২ সালে চাকরিতে যোগদান করেছেন। তারা ২৮ বছর একই পদে চাকরি করেছেন। একই পদেক চাকরি জীবনে ইতি টানিয়ে পেনশনে যেতে হবে। এর আগে যদি পদোন্নতিটি হয়, তাহলে তারা কিছুটা মানসিক প্রশান্তি পাবে।

আমারসংবাদ/এমআর