মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০

২০ শ্রাবণ ১৪২৭

ই-পেপার

আমার সংবাদ ডেস্ক

আগস্ট ০১,২০২০, ০৪:৫৬

আগস্ট ০১,২০২০, ০৭:৫১

মুসলিম যুবককে পিটিয়ে আধমরা করলো গোরক্ষকরা! দাঁড়িয়ে দেখলো পুলিশ (ভিডিও)

ধর্ম নিয়ে উন্মত্ত, উন্মাদ হয়ে উঠেছে ভারতের কিছু মানুষ। গরুর জীবনের দাম যেখানে মানুষের জীবনের চেয়ে বেশি হয় সেখানে এভাবেই নিরস্ত্র, নিরীহ মানুষকে রাস্তায় বেঘোরে মার খেতে হয়। আর হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকারের আমলে গোরক্ষকদের এমনই প্রভাব-প্রতিপত্তি যে, পুলিশও নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে।

শুক্রবার শুধুমাত্র সন্দেহের বশে এক নিরীহ মুসলিম যুবককে কয়েক কিলোমিটার রাস্তা ধাওয়া করল গোরক্ষকরা। তারপর তাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে আধমরা করা হল। লাথি, ঘুঁষি, কিল, চড় কিছুই বাদ গেল না। যতক্ষণ না সেই যুবক মাটিতে লুটিয়ে পড়লেন ততক্ষণ পর্যন্ত তাঁকে মারা হল। এর পর একটাই প্রশ্ন থাকে, কোনদিকে এগোচ্ছে ভারত? কোন ভয়ঙ্কর ভবিষ্যতের দিকে এগোচ্ছে ভারতের সমাজ?

চরম অমানবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের হরিয়ানার গুরগাঁওয়ে। সেই গুরগাঁও যেখানে একের পর এক বহুজাতিক সংস্থার টাওয়ার গজিয়ে উঠছে প্রতি মাসেই। সারা দেশের অসংখ্য শিক্ষিত যুবক-যুবতী সেখানে ভিড় জমাচ্ছেন চাকরির আশায়। ঠিক সেখানেই এক যুবককে গো-মাংস রাখার সন্দেহে কিছু উগ্র গোরক্ষক উন্মাদের মতো মারধর করলেন।

প্রায় আট কিলোমিটার রাস্তা গোরক্ষকরা ধাওয়া করে একটি পিক-আপ ভ্যানকে। তার পর গাড়ি থেকে এক যুবককে নামিয়ে মারধর শুরু করে তারা। সেই যুবকের কোনো কথাই তারা শোনেনি। সব থেকে অবাক করা ব্যাপার, সেই যুবককে মারধরের সময় লোকজন ভিড় করে সব দেখল। এমনকি কেউ কেউ মোবাইলে ভিডিও্ তুললেন, তবে সাহায্যে এগিয়ে এলেন না।

লোকমান হোসেন নামের ওই মুসলিম যুবককে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি পুলিশও। সামনে থাকা সত্ত্বেও নিরব দর্শক হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন পুলিশ সদস্যরা। এমনকি ওই যুবককে যখন মারধর করছিলেন গোরক্ষকরা সেই সময় পুলিশ ওই গাড়িতে থাকা মাংস ল্যাব টেস্টের জন্য পাঠাতে উদ্যোগী হয়। ওই মুসলিম যুবককে শুধু রাস্তায় মেরেই ক্ষ্যান্ত হয়নি গোরক্ষকরা। তাকে আবার স্থানীয় এক গ্রামে নিয়ে দ্বিতীয় দফায় মেরে আধমরা করা হয়।

গাড়ির মালিক জানিয়েছেন, গরু নয়, মোহিষের মাংস ছিল গাড়িতে। গত কয়েক বছর ধরে তিনি এই ব্যবসা করেন।

পুলিশ পরে বুঝতে পারে, ব্যাপারটা বাড়াবাড়ি হয়ে গেছে। তখন অজ্ঞাতপরিচর ব্যক্তিদের নামে এফআইআর দায়ের করে। যদিও ভিডিওতে সবার মুখই স্পষ্ট ছিল। তবুও পুলিশ দোষীদের খুঁজে পাচ্ছে না। এখনও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি।

সূত্র : এনডিটিভি, জি নিউজ।

ভিডিও : ক্লিক করুন