শনিবার ০৪ এপ্রিল ২০২০

২০ চৈত্র ১৪২৬

ই-পেপার

বেলাল হোসেন

প্রিন্ট সংস্করণ

ফেব্রুয়ারি ১২,২০২০, ০৫:৪৬

ফেব্রুয়ারি ১২,২০২০, ০৫:৫০

মেধা মননে এগিয়ে আমার সংবাদ


আজ ৮ম বছরে পা রাখলো দৈনিক আমার সংবাদ। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বহি:বিশ্বের বাংলা ভাষাভাষীর মানুষের কাছে পৌছে দিচ্ছে প্রতিদিনের কাঙ্ক্ষিত খবরগুলো। শুরুরদিকে স্বল্পপরিসরে কাজ শুরু করলেও বিগত ৭ বছরে দেশের স্বনামধন্য সাংবাদিকদের পরিচালনায় এগিয়ে চলছে আমার সংবাদ পত্রিকা।

পত্রিকাটির স্বপ্নদ্রষ্টা, একনিষ্ঠ অভিভাবক, কঠোর পরিশ্রমী, সফল সংগঠক সম্পাদক ও প্রকাশক হাশেম রেজা। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টা, মেধা মননে সামনের দিকে ধাবিত হচ্ছে আমার সংবাদ। দেশের ৬৪ জেলা প্রতিনিধি এবং চারশোর উপর থানা প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ নিয়ে বিশ্লেষণের পর সারা দেশের খবর পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হয়।

সর্বোপরি জাতীয়, রাজনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খেলাধুলা, বিনোদন ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য নিয়ে খবরের ভিতরের খবর তুলে আনছেন আমার সংবাদের চৌকস সাংবাদিকবৃন্দ।

বর্তমান গণমাধ্যমের দুরাবস্থার মাঝেও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে আমার সংবাদ। সত্য, সততাই যাদের প্রথম বৈশিষ্ট্য। ‘সত্যের সন্ধানে প্রতিদিন’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে দূর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে।

বর্তমান প্রযুক্তির কল্যাণে আমার সংবাদ পত্রিকার অনলাইন ভার্সনও চলছে দূর্বার গতিতে। আছে ফেসবুক, ইউটিউব, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সকল আধুনিক সমাহার।

যার মাধ্যমে মুহূর্তেই পৃথিবীর বুকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা কোটি বাঙালির নখদর্পে পৌঁছে যাচ্ছে নতুনত্ব সংবাদ। প্রশাসনের তৃণমূল অফিস থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ প্রাণকেন্দ্র সচিবালয় পর্যন্ত প্রায় প্রতিটি শাখা, অধিদপ্তর ও কেন্দ্রগুলোতে প্রতিদিনই আমার সংবাদের চৌকস সাংবাদিক দল মনিটরিং করছে। যাদের মাধ্যমে সরকারের বিভিন্ন সেক্টরের সফলতা ও ব্যর্থতা জনগণের কাছে তুলে ধরছে আমার সংবাদ।

এর মাধ্যমে দেশের প্রতিটি সেক্টরে আমার সংবাদের নির্ভুল তথ্য জনগণের কাছে পৌঁছুতে নিরলসভাবে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন একজন সমাজসেবী, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব প্রকাশক ও সম্পাদক শ্রদ্ধেয় হাশেম রেজা।

এ বিষয়ে আমার সংবাদ পত্রিকার সম্পাদক হাশেম রেজা বলেন, ‘বর্তমানে পত্রিকায় সাফল্যের চেয়ে চ্যালেঞ্জই সবচেয়ে বেশি। আমার সংবাদ পত্রিকার সৃষ্টিলগ্ন থেকেই আমরা চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।

আমরা এসেছি বিজয়ের সাথে, বলতে গেলে আমরা প্রথম যখন মার্কেটে এসেছি তখন বাজারে সংবাদপত্রের একটা জীবন ছিলো। সেসময় সংবাদ পত্রের একটা চাহিদা ছিলো এবং সম্মান ছিলো। বর্তমান বাজারে তা ফিরিয়ে আনতে আমাদের প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করতে হচ্ছে’।

সম্পাদক হাশেম রেজা আরও বলেন, ‘প্রিন্ট মিডিয়া এমন একটা জিনিস যেচা বাস্তব স্বপ্ন নয়। আমরা বাস্তবের সঙ্গে যুদ্ধ করে যাচ্ছি’।

তিনি আরো বলেন, ‘আজ আমরা ৭ম বর্ষ পার করে ৮ম বর্ষে পা রাখতে যাচ্ছি। ‘‘নির্ভীক সাহসিকতার হবে না শেষ গড়বো দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ’’ আমাদের এ ম্যাসেজ নিয়ে আমরা হাটি হাটি পা পা করে আজ এতোদূর এগিয়ে এসেছি। ‘সত্যের সন্ধানে প্রতিদিন’ এ স্লোগান আমাদের আছে। সারাদেশে আমাদের পাঠক আছে, গ্রাহক আছে। আমরা যখন শুরু করি ২০১২ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি। আমরা আস্তে আস্তে বর্তমানে একটা অবস্থান তৈরি করেছি।

সম্পাদক বলেন, ‘আমরা যখন প্রথমে এসেছি তখন ৮ পৃষ্ঠায় ছিলাম। সে পত্রিকা আজকে ট্যাবলয়েটসহ ১৬ পৃষ্ঠা বের করা হচ্ছে। প্রতিদিন আমরা প্রথম ও দ্বিতীয় সংস্করণ এর মাধ্যমে পত্রিকা পাঠকদের হাতে তুলে দিচ্ছি। আমার সংবাদের ভালো সাংবাদিক ও সকল অফিস স্টাফের সমন্বয়ে আমরা একটা লক্ষ্যে পৌঁছেছি। এখানে সবার অর্জন আছে, এখানে শুধু সম্পাদক হিসেবে আমার একার অর্জন তা ঠিক নয়। বর্তমানে সংবাদপত্রে চ্যালেঞ্জিংটা খুবই কঠিন, এই চ্যালেঞ্জের মাঝেই আমরা টিকে আছি’।

হাশেম রেজা আরো বলেন, বর্তমানে সংবাদমাধ্যমে একটা দূরাবস্থা যাচ্ছে। হতাশার মধ্য দিয়ে পার করছি সময়। তবুও আমরা টিকে আছি বলে জানান এ স্বপ্নদ্রষ্টা সম্পাদক। বর্তমানে কয়েক হাজার পত্রিকার মধ্যে ‘আমার সংবাদ’ টপ টেন স্থান ধরে আছে। আমাদের সাংবাদিকরা প্রতিদিনই বিশেষ সংবাদ পরিবেশন করছেন। সারাদেশে বিভিন্ন এজেন্টের ৬শর উপর স্টলে আমার সংবাদ পত্রিকা পাওয়া যাচ্ছে। সকলের ভালোবাসায় আজ আমরা বর্তমান অবস্থায় আছি।

তিনি আরও বলেন, অন্য পত্রিকাগুলোর চেয়ে ভালো আছি, আমাদের কোনো বদনাম নেই। আমার সংবাদ সম্পাদক বলেন, আমাদের শুরু থেকে সকল স্টাফদের নিয়মিত বেতন দিয়ে আসছি। এছাড়া সকল সুযোগ-সুবিধা দিয়ে আসছি।

বর্তমানে সরকারি বিজ্ঞাপনের সিমিত অবস্থা এছাড়াও আগের মতো আর বড় ক্রোড়পত্রের বাজেট না থাকায় কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। আমার কোটি কোটি টাকা লোকসান হলেও তা ধরে রেখেছি।

তবুও সাফল্যের মুখ দেখছি বলে জানান হাশেম রেজা। সারাদেশ ও বহি:বিশ্বের সকল পাঠক, গ্রাহক ও আমার সংবাদ পরিবারের সাথে যারা আছেন পত্রিকার জন্মদিনে সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি।

আমারসংবাদ/এসটিএমএ