শুক্রবার ০৫ জুন ২০২০

২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ই-পেপার

আমার সংবাদ ডেস্ক

এপ্রিল ০৪,২০২০, ১২:২৩

এপ্রিল ০৪,২০২০, ১২:২৬

ঘরে বসে ৭ কোটি ৫৬ লাখ টাকা আয় বাংলাদেশি বর্ষার

 

ঘরে বসে আয় করা যায় এটা অনেকেরই জানা। মানুষ এখন ইন্টারনেটে অর্থআয়ের জন্য নানা কৌশল প্রয়োগ করছে। অনলাইনে আয়ের নানা পথও তৈরি হয়েছে। ঘরে বসে আয়ের মাধ্যমে অনেকের ভাগ্যের চাকাও ঘুরেছে।

তেমনই একজন বাংলাদেশি বর্ষা। ঘরে বসে তিনি ৩ বছরে সাড়ে ৭ কোটি আয় করেছেন। অবিশ্বাস্য হলেও এমনটাই হয়েছে ঢাকায় বসবাসরত দুই সন্তানের মা বর্ষার জীবনে। তবে ওই তিন বছর ধরে এই আয়ের কথা তিনি পরিবার ও স্বামীর কাছ থেকে গোপন রেখেছেন।

ঢাকায় বসবাসরত সুমন এবং বর্ষা ২০০৪ সালে ভালোবেসে বিয়ে করেন। সুমন প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করেন এবং বর্ষা একটি ক্লিনিকে রিসেপশনিস্ট হিসাবে চাকরি নেন।

তাদের প্রথম সন্তান মেঘ জন্ম নেয় ২০০৮ সালে। সেসময় তারা সিদ্ধান্ত নেন যে বর্ষা আর চাকরি করবেন না। তিনি ঘরে সন্তানের দেখাশোনা করবেন।

কিন্তু সেসময়ে সুমনের কোম্পানি অর্থনৈতিক সঙ্কটে পড়ে। তবে সুমনের চাকরি না গেলেও বেতন অনেক কমে যায় এবং আরও বেশি সময় দায়িত্ব পালন করতে হয়।

সেসময়ের কথা জানিয়ে বর্ষা বলেন, সুমন আমাদের প্রয়োজন মেটাতো কিন্তু আমি দেখলাম তার অনেক কষ্ট হয়। আমরা টাকা বাঁচানোর অনেক চেষ্টা করলাম কিন্তু তা প্রয়োজনের তুলনায় যথেষ্ট ছিল না।

আমরা জানতাম না যে কী ঘটতে যাচ্ছে। বাজার উঠছে আবার নামছে। তখন আমি গর্ভবতী ছিলাম। আমরা সর্বোচ্চ ভালোর ব্যাপারে আশাবাদী ছিলাম।

এরপর তার দ্বিতীয় সন্তান হৃদির জন্মের পরপরই একদিন বিকেলে বর্ষা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্রাউজ করছিলেন এবং একটি বিজ্ঞাপন দেখেন যে তিনি বাসা থেকে প্রতিদিন ৮২ হাজার টাকা উপার্জন করতে পারবেন। কৌতূহলী, তিনি এটিতে ক্লিক করেন এবং কিছু গবেষণা করেন।

বর্ষা জানান, সেখানে অনেক ব্যবহারকারীর কাছ থেকে এটির কিছু দুর্দান্ত পর্যালোচনা ছিল। তাই আমি সিস্টেমের জন্য সাইন আপকে নিরাপদ বোধ করলাম। এটি দ্রুত ধনী হওয়ার স্ক্যামগুলির মতো নয় যেখানে আপনার জীবনধারণের জন্য জিনিস বিক্রি করতে হবে। আমার যদি জিনিস বিক্রি করতে হত তবে আমি সাইন আপ করতাম না

অলিম্প্রেড এমন একটি নির্দেশিকা ব্যবস্থা যা আপনাকে অনলাইনে অর্থোপার্জনে গুগল, ওয়ালমার্ট, অ্যামাজন, অ্যাপলের মতো এবং আরও অনেক ইন্টারনেট সাইট ব্যবহার করতে শেখায়।

সিস্টেমে অ্যাক্সেস পেতে আপনাকে যা করতে হবে তা হ'ল অনলাইনে একটি স্বল্প ফর্ম পূরণ করতে।

বর্ষা জানান, আমি সিস্টেমটি শুরু করার বিষয়ে নার্ভাস ছিলাম। আমি কম্পিউটারটি খুব ভালো জানি না, তবে যা জানা প্রয়োজন তা কীভাবে করা যায় তা তারা আপনাকে শেখায়।

আমি সত্যিই কেবল ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে জানতাম। আর আমিও চাইনি যে আমার এই কাজ দেখে সুমন এমন মনে করে যে, সে আমাদের প্রয়োজন মেটাতে পারছে না।

সিস্টেমটি ব্যবহার করার পরে তার প্রথম দুই সপ্তাহ পরে, দুটি চেক এসেছিল মোট দশ লাখ ৬৬ হাজার ৯৬৭ টাকার।

বর্ষা সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে, সুমনকে তার নতুন কাজের কথা বলার সাহস না পাওয়া পর্যন্ত এই অর্থ লুকানোর জন্য তার একটি উপায় প্রয়োজন।

সুতরাং, তিনি গোপনে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুললেন। তিনি প্রতি সপ্তাহে সরাসরি সেই অ্যাকাউন্টে চেক জমা দিয়ে আসতেন।

এভাবেই তিন বছর পার হয়ে গেলো। সুমন যখন কাজ করতে যেত বর্ষ তখন বাড়িতে অলিম্প্রেড সিস্টেমে কাজ করত। এছাড়া এই সময়ে অ্যাকাউন্টে জমা করা টাকা খরচ করেনি বর্ষা।

তিনি জানান, 'আমার স্বামীর কাছ থেকে এত বড় গোপনীয়তা রাখা আমার পক্ষে খুব কঠিন ছিল। আমার মনে হয়েছিল আমি তাকে বিশ্বাসঘাতকতা করছি, তবে আমি তাকে আরও কিছু বলার ভয় পেয়েছি। এর পিছনে ফিরে তাকালে মনে হয় এটি একটি বোকামি ছিল।

গত বছরের শুরুতে সুমন তার চাকরি হারায়। এই সময় তিনি কিছুটা ভেঙে পড়েন। বর্ষা সিদ্ধান্ত নেয় যে এই সময়ই সত্যটা বলা উচিত যে সে প্রতিদিন কী করেছে। ততক্ষণে তার অ্যাকাউন্টে জমা হয়েছে ৭ কোটি ৫৬ লাখ ৮ হাজার ৫২৮ টাকা।

সুমন জানান, বর্ষা আমার সামনে বসে পড়ল এবং বললো সে আমার কাছ থেকে কিছু লুকিয়েছে এটির জন্য ইশ্বরও তার জন্য লজ্জা পাবেন। তারপর সে তার জামার মধ্য থেকে একটি চেক আমার হাতে দিল। যাতে পরিমাণ লেখা ছিল ৭ কোটি ৫৬ লাখ ৮ হাজার ৫২৮ টাকা। আমি শুরুতে এটি বিশ্বাস করিনি। তারপর সে অলিম্প্রেড সিস্টেমের কথা বললো।

বর্ষা জানান, সুমন প্রথমে নীরব ছিল। আমি মনে করেছিলাম সে রাগান্বিত হয়েছে এবং ডিভোর্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। কিন্তু কিছুক্ষণ পর সে কাঁদতে শুরু করল এবং আমাকে জড়িয়ে ধরলো। আমি তাকে আমার লজ্জার ও দুঃখিত হওয়ার কথা জানালাম। সে জানালো যে কীভাবে সে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে।

নিজের সফলতার এই কাহিনী জানিয়ে বর্ষা পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি আয়ের কথা গোপন করার কথা বলবো না কিন্তু আপনি যদি কোনো নির্ভরযোগ্য আয়ের উৎস পান তবে আজই সেখানে যুক্ত হয়ে যাবেন।

সূত্র: ডেইলি নিউজ ফিন্যান্স ডট কম

আমারসংবাদ/এআই